//গুণীজন স্মরণ ও সংবর্ধনা ২০১৯
গুণীজন স্মরণ ও সংবর্ধনা ২০১৯

গুণীজন স্মরণ ও সংবর্ধনা ২০১৯

বাংলাদেশে আধ্যাত্মিকতার অনুশীলন ও চর্চার ইতিহাসে বায়তুশ শরফ স্বতন্ত্র মহিমায় ভাস্বর এক ব্যতিক্রমী প্রতিষ্ঠান। পূর্ণ ইসলামী জীবনব্যবস্থাকে আত্মস্থ করার মাধ্যমে তাসাউফের বিশুদ্ধ চর্চা এ দরবারের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে এ দরবার মানুষের নৈতিক, সামাজিক ও আধ্যাত্মিক বিশুদ্ধতার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

গুণীজন সংবর্ধনা বায়তুশ শরফ দরবারের একটি উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম। নব প্রজন্মকে ইসলামী আদর্শ চর্চায় অনুপ্রাণিত করার লক্ষ্যে ১৯৯৪ সাল থেকে বায়তুশ শরফের প্রধান রূপকার শ্রদ্ধেয় পীর ছাহেব, হাদিয়ে যামান শাহ সূফী আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মোহাম্মদ আবদুল জব্বার রাহ. এ সংবর্ধনা কর্মসূচির প্রবর্তন করেন। তখন থেকে প্রতিবছর ১১ রবিউল আউয়াল জাতীয় ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য দেশের বিশিষ্ট মনীষীকে মরনোত্তরসহ বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ সংবর্ধনা প্রদান ও স্মরণ করে আসছে।

গত ২৫ বছরে এ সংগঠনের পক্ষ হতে সর্বমোট ৯৮ জন প্রথিতযশা ব্যক্তিকে সংবর্ধনা প্রদান ও স্মরণ করা হয়। ইতোপূর্বে এতদঞ্চলে অনুরূপ সংবর্ধনার ব্যবস্থা না থাকায় বায়তুশ শরফই এ ব্যাপারে অগ্রপথিকের ভূমিকায় অবতীর্ণ বলে বিবেচিত। সার্বিক বিশ্লেষণে দেখা যায়, ইলমে দ্বীনের জন্য নিবেদিত প্রাণ কয়েকজন শিক্ষককে সংবর্ধিত করে ইলমে দ্বীনের প্রতি নব প্রজন্মের মাঝে উৎসাহ সৃষ্টি করতে বায়তুশ শরফ সক্ষম হয়েছে। একই ভাবে সমাজ কল্যাণে ব্যাপক অবদান রাখার জন্য কয়েকজন মরহুমকেও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করার মাধ্যমে এ সংবর্ধনা সার্বজনীনরূপ পরিগ্রহ করেছে। এভাবে জাতীয় অধ্যাপক হতে শুরু করে জাতীয় জীবনে স্ব-স্ব ক্ষেত্রে যেসব কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, চিকিৎসক, বিচারক অনন্য অবদান রেখে স্মরণীয় হয়েছেন তাঁদের সংবর্ধিত করে বায়তুশ শরফ এক ঐতিহাসিক গুরুদায়িত্ব পালন করে আসছে।

এ বছর যে ৪ জন গুণীকে বিশেষ সংবর্ধনা প্রদান করা হবে তাঁরা হলেন-

০১. বিশুদ্ধ কুরআন হাদীস চর্চায় ও দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ
প্রফেসর ড. গিয়াস উদ্দীন তালুকদার
শিক্ষক, আরবী বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

০২. চিকিৎসা সেবার মাধ্যমে মানবতার কল্যাণে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ
প্রফেসর ডা. আবু জাফর মোহাম্মদ সাদেক
অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, শিশু রোগ বিভাগ, ইউএসটিসি, চট্টগ্রাম।

০৩. সমাজ কল্যাণ, মানবসেবা, শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিকাশে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ
আলহাজ্ব রফিক আহমদ
নির্বাহী প্রধান, মমতা, চট্টগ্রাম।

০৪. সৎ সাংবাদিকতা, শিক্ষা বিস্তার, আর্তমানবতার সেবা ও ইসলামী সংস্কৃতি বিকাশে অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ
মরহুম হেলাল হুমায়ুন (মরণোত্তর)
প্রতিষ্ঠাতা, আল হেলাল আদর্শ ডিগ্রী কলেজ, সাতকানিয়া, চট্টগ্রাম।

প্রতি বছরের মতো এবারো পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী সা. উদযাপন উপলক্ষে বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ কর্তক ১৮, ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর ২০১৮ চারদিন ব্যাপি তামাদ্দুনিক প্রতিযোগিতা, পাখ-পাখালির আসর, শানে মোস্তফা সা., গুণীজন সংবর্ধনা ও আজিমুশশান ওয়াজ মাহফিলসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

গুণীজন সংবর্ধনা ও চার দিন ব্যাপী তামাদ্দুনিক প্রতিযোগিতা দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন Baitush Sharaf ইউটিউব চ্যানেলে এবং Baitush Sharaf News ফেসবুক পেজে
YoutTube: https://www.youtube.com/c/baitushsharaf
Facebook: https://www.facebook.com/BaitushSharafNews

বায়তুশ শরফ নিউজ ডেস্ক
১৮ অক্টোবর ২০১৯

Spread the Love :
  • 156
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    156
    Shares