//কবি আল মাহমুদ আর নেই

কবি আল মাহমুদ আর নেই

বায়তুশ শরফ আনুজমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ কর্তৃক সংবর্ধিত গুণীজন কবি আল মাহমুদ আর নেই। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

১৫ ফ্রেব্রুয়ারী শুক্রবার রাত ১১টা ৫ মিনিটে রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি নিউমোনিয়াসহ বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছিলেন। গত ৯ ফেব্রুয়ারি রাতে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় কবিকে ধানমন্ডির ইবনে সিনা হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। ওই দিন ইবনে সিনা হাসপাতালে তাঁকে প্রথমে সিসিইউতে ও পরে আইসিইউতে নেওয়া হয়। আজ (শুক্রবার) তাকে আজ ‘লাইফ সাপোর্ট’ দেওয়া হয়।

নব প্রজন্মকে ইসলামী আদর্শ চর্চায় অনুপ্রাণিত করার লক্ষ্যে ১৯৯৪ সালে বায়তুশ শরফের প্রধান রূপকার হাদীয়ে যামান শাহ সূফী আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মোহাম্মদ আবদুল জব্বার রাহ. “গুণীজন সংবর্ধনা” কর্মসূচীর প্রবর্তন করেন। সেই বছরই প্রথম সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে কবি আল মাহমুদ -কে বাংলা সাহিত্যে ইসলামী নবজাগরণের উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক হিসেবে সংবর্ধিত করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মৌড়াইল গ্রামের মোল্লাবাড়িতে ১৯৩৬ সালের ১১ জুলাই আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি আল মাহমুদ জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৩ সালে আল মাহমুদের প্রথম কবিতার বই ‘লোক লোকান্তর’ প্রকাশিত হয়। এরপর প্রকাশিত হয়, ‘কালের কলস’ ও ‘সোনালী কাবিন’। কবিতা ছাড়াও আল মাহমুদ লিখেছেন উপন্যাস, গল্প, প্রবন্ধ ও আত্মজীবনী।

সাহিত্যে বিশেষ অবদান রাখায় তিনি অসংখ্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক, ফিলিপস সাহিত্য পুরস্কার, শিশু একাডেমি (অগ্রণী ব্যাংক) পুরস্কার ও কলকাতার ভানুসিংহ সম্মাননা এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য।

Spread the Love :
  • 613
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    613
    Shares